article.title
 Dec 22, 2020
 2519

৬টি উপায় বাচ্চার Temperament বা বদমেজাজ হ্যান্ডেল করার

 

শিশুদের Temperament বা মেজাজ বলা যেতে পারে কাল বৈশাখী ঝড়ের মত। হঠাৎ আসে এবং সব তছনছ করে দিয়ে যায়। হয়তবা আপনি পরিবারসহ রেস্টুরেন্টে বসে ডিনার করছেন এমন সময় আপনার বাচ্চা কান্নাকাটি শুরু করে দিইয়েছে কারণ তার মনে হয়েছে তার কোকাকোলার স্ট্রটা বাঁকানো। ১ থেকে ৩ বছরের বাচ্চাদের জন্যে এটা খুবই স্বাভাবিক। এই বয়সে আপনার শিশু নতুন নতুন অনেক শব্দ শুনে তার চারপাশের মানুষের কাছ থেকে কিন্তু সে নিজে নিজে শব্দ তৈরি করতে পারে না। এতে করে তার মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয় যা চিৎকার, কান্নাকাটি কিংবা জিনিসপত্র ভাঙ্গাভাঙ্গির মধ্যেদিয়ে প্রকাশ পায়।

যে ৬টি উপায়ে বাচ্চার Temperament হ্যান্ডেল করতে পারেনঃ

১. প্রথমত আপনি নিজের মাথা ঠাণ্ডা রাখুন। বাচ্চারা যখন জেদ করে তখন জিনিসপত্র ছোঁড়াছুড়ি থেকে শুরু করে নিজেকে নিজে ব্যাথা দেয়া কিংবা শ্বাস আটকে রাখার মত ভয়াবহ কাজও করতে পারে। এগুলি করা তাদের জন্য খুবই স্বাভাবিক। তারা একবার জেদ করা শুরু করলে আপনার কোন কথা শুনবে না তো বটেই বরং আপনি যা বলবেন তার উল্টোটাও করতে পারে। এমন অবস্থায় চুপচাপ তার পাশে বসে থাকাটাই সবচেয়ে বুদ্ধিমানের কাজ। পরিস্থতি বেশি খারাপ হলে তাকে বকাবকি করে কিংবা তাকে ফেলে রেখে ঘর থেকে বের হয়ে না গিয়ে তাকে আগলে ধরে বসে থাকুন।

২. নিজের সিদ্ধান্ততে অটল থাকুন। বাচ্চারা যত জেদই করুক না কেন কখনই তাদের আবদার শুনবেন না অথবা চিৎকার করে বকবেন না। যদি আপনি একবার বাচ্চার অন্যায় আবদার শুনেন তাহলে সে মনে করবে সবকিছু পাওয়ার জন্য চিল্লাচিল্লি করা বা জিনিসপত্র ভেঙ্গে ফেলা স্বাভাবিক। বাচ্চারা সাধারণত প্রচুর মানুষ দেখলে বেশি জেদ করে। এরকম পরিস্থিতির শিকার হলে তাকে নিয়ে ওই জায়গা থেকে সরে আসুন। এবং যতক্ষণ সে না থামে তার সাথে থাকুন।

৩. দরকার পড়লে “টাইম আউট” ব্যবহার করুণ। আপনার বাচ্চার বয়স যদি ৩ বছর বা তার বেশি হয় তাহলে “টাইম আউট” ব্যবহার করতে পারেন। “টাইম আউট” হল কিছুক্ষণ তাকে একা একটি ঘরে এক কোণায় রাখা। টাইম আউটের জন্যে যে ঘরটি ব্যবহার করবেন তা যেন যথেষ্ট নিরাপদ হয় যাতে আপনি আপনার বাচ্চাকে সেখানে একা রাখতে পারেন। তাকে এটা বুঝাবেন যে এটি কোন শাস্তি নয় বরং তার অনাকাঙ্ক্ষিত আচরনের ফল। সে যদি না যেতে চায় তাহলে কথা না বারিয়ে তাকে চুপচাপ সেখানে রেখে চলে আসুন। “টাইম আউট” এর সময় তার সাথে একদমই কথা বলবেন না।

৪. আপনার বাচ্চা খুব জেদ করলে বা কান্নাকাটি করলে তাকে আগে শান্ত হওয়ার সময় দিন। তারপর তার সাথে এ ব্যাপারে কথা বলুন কেন সে চিল্লাচিল্লি করেছিল বা ভাংচুর করেছিল। তাকে কথার মাধ্যমে বুঝান যে, কান্নাকাটি করলেই কিছু পাওয়া যায় না।

৫. তাকে সবসময় অনুভব করান যে আপনি তাকে ভালবাসেন। যখনি তাকে কোন কাজের জন্যে শাস্তি দিবেন বা বকা দিবেন তারপর কখনই আদর করতে ভুলবেন না। সে যদি কোন ভাল কাজ করে তাহলে তাকে ছোটখাট পুরষ্কার দিন।

৬. লক্ষ্য রাখুন কি ঘটলে আপনার শিশু বেশি জেদ করে। যদি আপনি দেখেন তার খিদে পেলে সে কান্নাকাটি করছে তাহলে খাবার সবসময় রেডি রাখুন। অথবা যদি মনে হয় তার কাছ থেকে কিছু সরিয়ে নিলে সে জেদ করছে তাহলে সঙ্গে সঙ্গে অন্য কিছু দিয়ে ভুলিয়ে ফেলার চেষ্টা করেন। তাকে কান্নাকাটি করার সুযোগেই দিবেন না। সঙ্গে সঙ্গে অন্য কিছুতে তাকে ব্যস্ত করে ফেলবেন। আপনার বাচ্চা বড় হচ্ছে তাই যতটা পারেন তাকে নিজের পছন্দ অনুযায়ী থাকার সুযোগ দিন।

 

Related Articles
Please Come Back Again for Amazing Articles
Related Products
Please Come Back Again for Amazing Products
Tags
ToguMogu App