ToguMogu
ToguMogu
article.title
 Jun 10, 2019
 3874

শিশুকে যেভাবে লিখতে উৎসাহী করে তুলবেন

লেখা-পড়া কথাটি শুরুই হয় লেখা দিয়ে। এবং মজার ব্যাপার শিশুরা পড়াশুনা শুরুর আগেই একদম ছোট থেকেই কলম, পেন্সিল বা রং-পেন্সিলসহ হাতের কাছে যা পায় তা দিয়েই আগে লেখা শুরু করে। লেখার শুরুটা হয় ২ বছর থেকেই আর লেখাপড়ার এক বড় ধাপই হল লেখা। অথচ টেকনোলোজির এই যুগে এসে আমরা শিশুদের লেখার অপশনটাও কম দিচ্ছি, আবার অন্য দিকে অনেক অভিভাবকই বলছেন -“আমার শিশু লিখতে চায়না।”

২-৩ বছর বয়সের শিশুরা যখন থেকে ভালো করে কিছু ধরতে শিখে তখন থেকেই দেখা যায় শিশুরা লেখার চেষ্টা করে।প্রায় সব সময়েই দেখা যায় বাড়ির দেয়াল বা এখানে সেখানে বিভিন্ন জায়গায় তারা আঁকিবুঁকি করছে। এই ধরনের কাজ অনেকেই আমরা অপছন্দ করি। কিন্তু এই রকমের কাজই শিশুর সৃজনশীলতা বাড়ায়। আর আমাদের উচিৎ ধমক না দিয়ে তাদের আরও উৎসাহী করে তোলা উপযুক্ত পরিবেশ দিয়ে।

লেখার প্রতি ভালোবাসা ধরে রাখতে নিচের এই ৬ টি উপায়

১। শিশুকে পড়ে শোনানোঃ 

শিশুর সাথে নিয়মিত গল্পের বই পড়ুন। নতুন নতুন বই পড়লে শিশুদের শব্দ-ভান্ডার আরও সমৃদ্ধ হবে। নতুন শব্দের ব্যবহার শিখবে এবং সেই শব্দগুলো যখন নিজের লেখায় ব্যবহার করবে তখন লেখার প্রতি উৎসাহ আরও বেড়ে যাবে।গল্পের বইয়ের পাশাপাশি পত্রিকা বা অন্য যে কোনও লেখাই শিশুর সাথে বসে পড়তে পারেন।

যেমন ধরুন, যদি আপনি আপনার শিশুকে রূপকথার গল্প পড়ে শোনান তবে সে হয়তো রাজা, রাজ্য, রাজকন্যা ইত্যাদি নিয়ে জানবে আবার অন্যদিকে ম্যাগাজিন যখন পড়ে শোনাবেন তখন হয়তো স্টাইল, গ্ল্যামার, ট্রেন্ড ইত্যাদি নিয়ে জানবে। মনে রাখবেন, আপনার এই পড়ার তালিকায় যত ভিন্ন রকমের লেখা যুক্ত করবেন আপনার শিশুও তত ভিন্ন রকমের কিছু নিয়ে জানবে আর তার লেখাটাও তখন আরও ভালো হবে।

২। শিশুর লেখাকে এবং শব্দ শেখাকে আনন্দময় করুনঃ 

শিশুর শব্দ শেখাটাও আনন্দময় করা যায়। কিভাবে ভাবছেন? ছোটবেলায় ক্লাসে বসে শব্দের খেলা খেলেনি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন হবে। পত্রিকার ঐ “শব্দজট” খেলাটা অনেকেরই প্রিয় খেলা।

আপনি নিজে শিশুর আগ্রহ মত এমন কিছু খেলা খেলতে পারেন।হতে পারে পত্রিকার কোনও একটি পৃষ্ঠা বের করে আপনি তাকে জিজ্ঞেস করছেন – এই পৃষ্ঠায় কোথায় কোথায় “আমাদের” লেখা আছে তা খুঁজে বের করি চল। অথবা ওয়ার্ড গেইম, ওয়ার্ড পাজেল এর যেসব খেলনা বাজারে পাওয়া যায় সেগুলো নিয়েও খেলতে পারেন।মনে রাখবেন শিশুকে আনন্দ আর খেলার ছলে শেখানোটাই সবচেয়ে বেশি ভালো।

৩। ভিন্ন ভিন্ন রকমের আলাদা উপকরণ ব্যবহার করুনঃ 

শিশুরা বিভিন্নভাবে শেখে এবং তাদের আগ্রহটাও পরিবর্তন হয়। ছোট শিশুরা একটু মোটা এবং কম প্রেশার দিলেও লেখা যাবে এমন কিছু পছন্দ করে যেমন সাইন-পেন বা ক্রেয়ন। অন্য দিকে শিশুরা একটু বড় হলে পেন্সিল বা কলম বেশি পছন্দ করে। ছোট শিশুদের লেখার আগ্রহ তৈরিতে বিভিন্ন রকমের উপাদান যেমনঃ প্লে-ডো, রং-তুলি, হোয়াইট বোর্ড- মার্কার ইত্যাদি ব্যাবহার করতে পারেন। শিশুদের আগ্রহ আর বয়সের উপর ভিত্তি করে যখন আপনি এমন উপাদানও পরিবর্তন করবেন তখন দেখবেন আপনার শিশুর লিখার আগ্রহ আরও বেড়েছে।

৪। চিঠি লেখা বা কার্ড পাঠানোর প্রথা তৈরি করুন নিজের পরিবারেঃ 

আধুনিক এই যুগে চিঠি আর কেউ পাঠায়না। কিন্তু ভেবে দেখুনতো কারও কাছে নিজের অনুভূতি প্রকাশের মাধ্যম কত মজাদার আর উপযোগী ছিল। পত্র মিতালি হয়তো এখন ফেসবুক ফ্রেন্ডে পরিণত হয়েছে। কিন্তু হাতে লেখা চিঠি অথবা কার্ড এখনও আমরা পছন্দ করি।

নিজের পরিবারেই এমন প্রথা শুরু করতে পারেন। শিশুকে নিয়ে নিজের বাবা-মা বা পরিবারের অন্যদেরকে চিঠি লিখতে পারেন। স্পেশাল অনুষ্ঠান যেমন ইদ বা পূজার মত অনুষ্ঠানে চিঠির পাশাপাশি কার্ড পাঠাতে পারেন। এতে করে নিজে সুন্দর করে লেখার অভ্যাস তো হবেই পাশাপাশি অন্যদের উপহার দেয়ার আনন্দটা বুঝতে পারবে।

৫। লেখা এবং আগ্রহকে এক করে দেয়াঃ

একটু ভেবে দেখুন আপনি কোন কাজে আগ্রহ বেশি পান? যা আপনার নিজের ভালো লাগে। আপনার শিশুও কিন্তু এমনই। আপনাকে খুঁজে বের করতে হবে তার আগ্রহ কিসে?

মনে করুন আপনার শিশুর আগ্রহ ডাইনোসরে। আপনি কিন্তু ডাইনোসরকে নিয়েই কিছু কথা, কিছু লাইন লিখতে বলতে পারেন। সবারই এমন কিছু না কিছু নিয়ে আগ্রহের জায়গা আছে। সেটা খুঁজে বের করে লেখার সাথে এক করে দিতে পারলেই দেখবেন শিশু নিজেই কত কিছু লিখে ফেলছে। আর নতুন নতুন লেখার আগ্রহও পাচ্ছে।

৬। শিশুকে সময় দিনঃ  

শিশুর প্রতিটা কাজেই আপনাকেই সময় দিতে হবে। উপরের লিখা প্রতিটা ধাপই এমন যে আপনি যদি শিশুর সাথে বসে কাজগুলো করেন তাহলেই শুধু তার নিজের আগ্রহ বাড়বে। এবং আপনি একদিন করলেই হয়ে যাবেনা। সময় নিয়ে নিয়মিতভাবে করলেই শুধু এমন প্র্যাকটিসের মাঝে শিশুকে বড় করতে পারবেন।

সময় দিতে হবে এবং কাজের ধাপ বুঝে প্রশংসাও করতে হবে। তবেই আপনার শিশুর মাঝে লেখার প্রতি আগ্রহ বাড়বে এবং সুন্দর করে গুছিয়ে লিখতেও পারবে।

সন্তানের সৃজনশীলতার চর্চা করান কিডসটাইমের কোর্সে।কিডসটাইমের কোর্স গুলো দেখতে ভিজিট করুন নিচের লিংকে :

ToguMogu App